ফেসবুক থেকে ইনকাম করার উপায়। ঘরে বসে ফেসবুক থেকে ডলার আয় করুন।

আসসালামু আলাইকুম। ফেসবুক হচ্ছে বর্তমান সময়ের সবচেয়ে পপুলার সোশ্যাল মিডিয়া। পুরো পৃথিবীর কোটি কোটি মানুষ প্রত্যেকদিন এটা ব্যবহার করে। আমি আপনি সবাই ব্যবহার করি তবে আমরা বেশিরভাগই এটা দিয়ে সময় অপচয় করি। আজকে আমি এমন কিছু পদ্ধতি বলব যেটা দিয়ে আপনি ফেসবুক ব্যবহার করার সাথে ইনকাম করতে পারবেন। যেহেতু আপনি ইনকাম করবেন অবশ্যই আপনাকে পরিশ্রম করতে হবে। যদি এই মানসিকতা টা থাকে তাহলে অবশ্যই পুরো পোস্ট পরবেন। যেটা আপনাকে ইনকাম করতে অনেক বেশি সাহায্য করবে।

ফেসবুক থেকে ইনকাম করার উপায়। ঘরে বসে ফেসবুক থেকে ডলার আয় করুন।

ফেসবুক থেকে ইনকাম

ফেসবুক মনিটাইজেশনের মাধ্যমে আয় করুন। 

হয়তো বুঝতে পেরে গেছেন আমি কি নিয়ে আলোচনা করব। বর্তমান সময়ে ফেসবুক থেকে কনটেন্ট তৈরি করে অনেক মানুষ প্রচুর টাকা ইনকাম করতেছে। আপনি ও আপনার প্রতিভাকে কাজে লাগিয়ে এখান থেকে ইনকাম করতে পারবেন। আপনার যেই বিষয়ের প্রতি আগ্রহ সেই বিষয়ের কনটেন্ট তৈরি করুন। অবশ্যই সেটা ভিডিও কনটেন্ট হতে হবে। তারপর আপনার ফেসবুক পেজে সেই কনটেন্ট গুলোর নিয়মিত আপলোড করুন। যেকোনো একটা কন্টেন্ট ভাইরাল হয়ে গেলে আপনার নির্দিষ্ট ফলোয়ার এবং ওয়াশটাইম হয়ে গেলে আপনি মনিটাইজেশনের জন্য এপ্লাই করতে পারবেন। তারপর থেকে আপনি লাইফ টাইম এই পেজ থেকে ইনকাম করতে পারবেন।

ফেসবুক মার্কেটপ্লেস থেকে ইনকাম। 

বর্তমান সময় আপনারা দেখতে পাচ্ছেন যে ফেসবুকে মার্কেটপ্লেস নামে একটা tab রয়েছে। এখানে প্রচুর মানুষ তাদের প্রোডাক্ট এড করতেছে এবং যাদের প্রোডাক্ট প্রয়োজন তারা এখান থেকে কিনতেছে। আপনি চাইলে নিজের কোন প্রোডাক্ট এখানে সেল করে ইনকাম করতে পারবেন। আপনার যদি কোন প্রোডাক্ট না থাকে তাহলে আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে এখান থেকে ইনকাম করতে পারবেন। এখানে যখন আপনি প্রোডাক্ট এড করবেন আপনাকে কোন টাকা দিতে হবে না। এছাড়াও যার প্রোডাক্ট প্রয়োজন সে সরাসরি আপনাকে মেসেজ করতে পারবে। যার ফলে সে আপনার কাস্টমার হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।

ফেসবুকে ব্যবসা করে ইনকাম। 

বর্তমান সময়ে সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তাদের অনলাইন প্লাটফর্ম তৈরি করছে। অনলাইনে তারা প্রচুর মার্কেটিং করে প্রোডাক্ট সেল করতেছে। আপনি চাইলে নিজের একটা অনলাইন ব্যবসা তৈরি করে ফেলতে পারবেন খুব সহজে। আমি আপনাদের সাজেশন করবো যে আপনারা প্রথমে একটা ওয়েবসাইট তৈরি করে তারপরে ফেসবুক পেজে সেই ওয়েবসাইটের প্রোডাক্ট গুলো সেল করেন। আপনি যদি আরো ছোট পরিসরে শুরু করতে চান তাহলে শুধুমাত্র একটা ফেসবুক পেজ দিয়ে আপনার ব্যবসা শুরু করতে পারেন। ফেসবুকে বর্তমান সময়ে পপুলার প্রোডাক্ট গুলো এড করুন।

তারপর চাইলে ফেসবুকে পোস্ট করে সেটা শত শত বা হাজার হাজার মানুষের সামনে পৌঁছে দিতে পারেন। একটা ভালো অ্যাড রান করতে পারলে সেখান থেকে আপনার অনেক ভালো প্রফিট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এর জন্য অবশ্যই আপনাকে যেই মানুষের জন্য যেই প্রোডাক্টগুলো দরকার সেই সকল মানুষের কাছে এড পৌঁছাতে হবে। অবশ্যই আপনাকে এমন একটা প্রোডাক্ট সিলেক্ট করতে হবে যেটা ডিমান্ড বর্তমানে রয়েছে।

মার্কেটপ্লেস থেকে ফেসবুকের কাজ করে ইনকাম। 

যেহেতু অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের অনলাইন প্লাটফর্মকে ফেসবুকে এড করতেছে অথবা অফলাইন প্লাটফর্মকে ফেসবুকে এড করতেছে। তাই তাদের এমন মানুষ প্রয়োজন হচ্ছে যারা ফেসবুক সম্পর্কে এক্সপার্ট। আপনি যদি ফেসবুকের সকল কাজগুলো শিখে রাখেন তাহলে আপনি এই কাজগুলো বিক্রি করে ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমান সময়ের সবচেয়ে পপুলার মার্কেটপ্লেস ফাইবার কিংবা অপরকে যদি আপনি যান তাহলে দেখবেন সেখানে ফেসবুকের প্রচুর কাজ রয়েছে। ফেসবুক মার্কেটিং, ফেসবুক বিজনেস,  ফেসবুক অটো রিপ্লাই সহ আরো অনেক কাজ এর সেখানে ডিমান্ড রয়েছে। আপনি এই কাজগুলো ভালোভাবে শিখে সেটা সেল করতে পারবেন। যদি আপনি কোন একটা ভালো কোম্পানির যে কোন একটা ফেসবুকের সার্ভিস এর জন্য জব পেয়ে যেতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আপনি এখান থেকে পার্মানেন্টলি একটা এমাউন্ট ইনকাম করতে পারবেন। এর জন্য প্রয়োজন আপনার পরিশ্রম এবং ফেসবুকের সময় নষ্ট না করার মানসিকতা।

ফেসবুক পেইজ বিক্রি করে ইনকাম। 

আপনি যদি একটা ফেসবুক পেজ মনিটালাইজেশন করাতে পারেন। আপনি চাইলে সেই পেজটা অনেক ভালো দামে বিক্রি করতে পারবেন। বর্তমানে এরকম অনেক মানুষ আছে যারা কপিরাইট খেলা কিংবা যেকোনো গান মুভির অংশ ফেসবুকে ছাড়ে তারপর সেখান থেকে মনিটরাইজেশন করে পেজ বিক্রি করে দেয়। এক্ষেত্রে আপনাকে অনেক ভালো কিছু টেকনিক অবলম্বন করতে হবে। যাতে আপনার ভিডিওতে কপিরাইট ক্লাইম না আসে। আপনি এরকম অনেক ফ্রী কোর্স পাবেন কিংবা পেইড কোর্স পাবেন যেগুলোর একটা চাইলে করে নিতে পারেন। আপনি যদি একবার এই কাজটা শিখে যেতে পারেন তাহলে আপনি এখান থেকেও প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

ফেসবুক রিলস থেকে টাকা ইনকাম। 

এটা অনেকটা ফেসবুক কন্টেন্ট তৈরি করে মনিটরাইজেশন করে ইনকাম করার মত। তবে ফেসবুকে নরমাল ভিডিও থেকে রিলস ভিডিওগুলোতে অনেক বেশি ভিউ পাওয়া যায় এবং অনেক তাড়াতাড়ি মনিটাইজেশন করা যায়। তাছাড়া ফেসবুক নরমাল ভিডিওতে কপিরাইট কনটেন্ট নিয়ে কাজ করা যতটা কঠিন ফেসবুক নিয়ে কাজ করে তার তুলনায় অনেক সহজ। ফেসবুক উইল সে খুব একটা বেশি কপিরাইট ক্লাইম আসেনা।

ফেসবুক মিলছে একটা ভিডিও ভাইরাল হয়ে গেলি সেখান থেকে আপনার মনিটাইলাইজেশন হয়ে যায়। ফেসবুক রিলস এর জন্য আলাদা মনিটরাইজেশন এর ব্যবস্থা করেছে। আপনার মনিটালাজে আসন যদি অন করা থাকে তাহলে প্রথম দিন থেকেই আপনার অ্যামাউন্ট জমা হতে থাকবে। যখন আপনি এড অন রিল স অপশন টা পেয়ে যাবেন তখন আপনার পুরো এমাউন্ট আপনার ফেসবুকে অ্যাড হয়ে যাবে। এই টাকা এবং facebook এড থেকে যে টাকা আপনি পাবেন সেগুলো সরাসরি ব্যাংক একাউন্টে নিয়ে নিতে পারবেন।

ফেসবুক থেকে কত টাকা আয় করা যায়। 

ফেসবুক থেকে আপনি কত টাকা ইনকাম করতে পারবেন এটা নির্ভর করে আপনার কাজের ধরন ও পরিশ্রমের উপর। আপনি যত বেশি স্মার্টওয়েতে কাজ করবেন তত বেশি ইনকাম করতে পারবেন। অনেক মানুষ আছে যারা ফেসবুক থেকে লাভ ক্লাব টাকা ইনকাম করে আবার অনেক মানুষ আছে যারা ফেসবুকে প্রচুর চেষ্টা করার পরে টাকা ইনকাম করতে পারে না। এই সবগুলো বিষয় ব্যক্তিবেদে আলাদা হয়ে থাকে তাই এই ব্যাপারে আগে থেকে বলা যায় না। আপনি যদি সঠিক নিয়মে প্রতিশ্রম করেন তাহলে অবশ্যই আপনি ইনকাম করতে পারবেন।

শেষকথাঃ আপনি যদি চান কোন প্রকার পরিশ্রম না করে টাকা ইনকাম করতে তাহলে আপনি বোকার স্বর্গে বাস করছেন। কোন এক ভাগ্যক্রমে হয়তো আপনি টাকা ইনকাম শুরু করে ফেলতে পারবেন। কিন্তু আপনি যদি পরিশ্রমই না হন তাহলে সেটা আপনি ধরে রাখতে পারবেন না । তাই পরিশ্রম করুন ইনশাল্লাহ পরিশ্রমের ফলাফল আপনি পাবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

আরো পড়ুন: দক্ষিণ কোরিয়ার ভাষা শিক্ষা- শুরু থেকে শেষ পযন্ত।

Leave a Comment