চীনে স্কলারশিপ নিয়ে লেখপড়া করুন। চায়নায় লেখাপড়া করার উপায়। Study In China From Bangladesh With Scholarship.

আসসালামু আলাইকুম। বিদেশে উচ্চশিক্ষার টিউটোরিয়ালের আরেকটি পোস্টে আপনাদের সবাইকে স্বাগতম। আজকে আমরা আলোচনা করব চায়না নিয়ে। চায়নায় আমাদের যদি উচ্চ শিক্ষার জন্য যেতে চাই তাহলে কি কি সুযোগ-সুবিধা পাবো এবং কি কি অসুবিধা হবে সেই বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

চীনে স্কলারশিপ নিয়ে লেখপড়া করুন। চায়নায় লেখাপড়া করার উপায়। Study In China From Bangladesh With Scholarship.

Study In China From Bangladesh

চীন দেশ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য। 

চায়না হচ্ছে এশিয়া মহাদেশের একটি দেশ। পৃথিবীর পাঁচটা বড় দেশের মধ্যে চায়না একটা। চায়নাতে বর্তমানে ১৪০ কোটির বেশি মানুষ বসবাস করে। চায়নার রাজধানী হচ্ছে বেইজিং। জনসংখ্যার দিক থেকে সবচেয়ে বড় শহর হচ্ছে Shanghai. চায়নার ভাষা হচ্ছে চাইনিজ। এছাড়াও তাদের অনেকগুলো ভাষা রয়েছে তবে চাইনিজ ই সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ভাষা।

চায়নায় পড়তে কি কি লাগবে?

পৃথিবীর অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়তে যেসকল ডকুমেন্ট লাগবে তার প্রায় সবগুলি চায়নাতেও লাগবে । তবে চায়নার অনেক বিশ্ববিদ্যালয়তেই আপনি IELTS ছাড়া ভর্তি হতে পারবেন। আপনি যদি চান যে চায়নাতে ১০০% স্কলার্শিপ নিয়ে লেখাপড়া করবেন তাহলে হয়তো আপনার IELTS লাগতে পারে।  আপনি চায়নাতে লেখাপড়া করতে চাইলে,,  যদি ব্যাচেলর করতে চান তাহলে আপনার এসএসসি ও এইচএসসি এবং যদি মাস্টার্স করতে চান তাহলে এর সাথে অনার্সের সার্টিফিকেট লাগবে।

চায়নাতে লেখাপড়ার খরচ কি করম। 

ইউরোপ এবং অন্যান্য উন্নত দেশে তুলনায় চায়নাতে খরচ অনেক কম। সবচেয়ে ভালো সুবিধা পাবেন থাকা খাওয়ার খরচ এর দিক থেকে। চায়নাতে বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেই ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্টের থাকার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়। যেহেতু থাকার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয় তাহলে আমাদের বিশাল একটা খরচ কিন্তু এখান থেকে বেঁচে যায়। এইখানে খাবারের জন্য খুব বেশি খরচ করতে হয় না মাত্র পাঁচ থেকে দশ হাজার টাকার মধ্যে হয়ে যায়। ইউরোপ ও অন্যান্য উন্নত দেশগুলোতে যেখানে প্রত্যেক মাসে আপনাকে প্রায় এক লক্ষ টাকা খরচ করতে হয়ে থাকা এবং খাওয়ার জন্য। এইখানে আপনি মাত্র দশ হাজার টাকার মধ্যে সবকিছু সেরে নিতে পারবেন।

চায়নাতে শিক্ষা ব্যবস্থা কি রকম? 

চায়না হচ্ছে এশিয়ার মধ্যে এমন একটা দেশ যারা খুব দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। খুব বেশিদিন আগেও তাদের অবস্থা খুব একটা ভালো ছিল না। কিন্তু তারা দিনদিন অনেক বেশি উন্নতি করছে। বিশেষ করে টেকনোলজি দিক থেকে বর্তমানে তারা অনেক বেশি এগিয়ে। তাদের শিক্ষা ব্যবস্থা অত্যাধুনিক। দিনদিন তাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আরো উন্নত থেকে উন্নততর হচ্ছে। বাংলাদেশের থেকে তুলনামূলক অনেক ভালো শিক্ষা ব্যবস্থা এবং পরিবেশ আপনি চায়নাতে পাবেন।

চায়নার বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয় ইংরেজিতে লেখাপড়া করানো হবে। বিশেষ করে যারা ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্ট তাদের জন্য ইংরেজিতে লেখাপড়া করার ব্যবস্থা রয়েছে। আপনি চাইলে চায়না থেকে প্রথমে চাইনিজ ভাষার কোর্স করে তারপর লেখাপড়া করতে পারবেন। এছাড়াও অনেক বিশ্ববিদ্যালয় প্রথমে চাইনিজ ল্যাঙ্গুয়েজ শেখানো হয়। আপনারা যখন চায়নাতে যাবেন অবশ্যই গুরুত্বের সাথে ক্লাস করবেন। আপনি যদি চাইনিজ ভাষাটা শিখে নিতে পারেন সেটা আপনাকে চায়নাতে অনেক বেশি সাহায্য করবে।

চায়নাতে কি পার্ট টাইম জব পাওয়া যাবে?  

চায়নাতে পার্টটাইম জব পাওয়া সম্ভব না খুবই কম। আপনি চায়নার যে সকল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে লেখাপড়া করবেন এবং চায়না সরকার সাধারণত কাজ করার অনুমতি দেয় না। তারপরও অনেকে চায়নাতে পার্ট টাইম কাজ করে। বিশেষ করে যখন কলেজ বন্ধ থাকে তখন তারা কাজ করে। চায়নাতে আপনি যদি পার্টটাইম জব পেতে চান অবশ্যই আপনাকে চাইনিজ ল্যাঙ্গুয়েজ ভালোভাবে পারতে হবে। আপনি যদি চাইনিজ ভাষা না জানেন তাহলে আপনি ধরে নিতে পারেন যে কেন আপনি কোন জব পাবেন না।

চাইনিজ ভাষা পারলে আপনি অনেক রকম কাজে কেন করতে পারবেন। আপনারা জানেন যে বাংলাদেশের প্রায় অনেক প্রোডাক্ট চায়না থেকে আসে। আপনি চাইলে সেখান থেকে ইনপুটের ব্যবসা করতে পারেন। বাংলাদেশে প্রোডাক্ট পাঠাতে পারলে আপনি সেখান থেকে কমিশন পাবেন এবং ভালো একটা ব্যবসা করতে পারবেন।

চায়নাতে সুবিধা এবং অসুবিধা কি কি?  

চায়নাতে লেখাপড়া করার সুবিধা হচ্ছে আপনি কম খরচে ভালো মানের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে লেখাপড়া করতে পারবেন। চায়নাতে লেখাপড়া করার অসুবিধা হচ্ছে চায়নাতে আপনারা হয়তো জানেন যে বাংলাদেশের মতো এরকম ইন্টারনেট ব্যবহার করা যায় না। এজন্য আপনি যদি ইন্টারনেট ব্যবহার করতে চান তাহলে হয়তো আপনাকে ভিপিএন ব্যবহার করতে হবে। তাছাড়া তাদের একটি অ্যাপ রয়েছে উইচেট সেটা আপনি ব্যবহার করতে পারবেন। সেটা ব্যবহার করে আপনি বাংলাদেশ সহ অন্যান্য মানুষের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন।  তাছাড়া ইউরোপ এবং অন্যান্য উন্নত দেশে আপনি যেরকম সুযোগ-সুবিধা এবং রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা পাবেন সেটা আপনি পুরোপুরি চায়নাতে পাবেন না।

শেষকথা: আপনারা যারা বিদেশে উচ্চ শিক্ষার জন্য আগ্রহী কিন্তু ফ্যামিলির অর্থনৈতিক অবস্থা অনেক বেশি ভালো নয়। তাদের জন্য সবচেয়ে ভালো চয়েজ হতে পারে চায়না। আপনি চায়নাতে লেখাপড়া করে পরবর্তীতে অন্য কোন উন্নত দেশে মুভ করতে পারবেন। তাছাড়াও চায়নাতে লেখাপড়ার পরিবেশ মোটামুটি ভালো। সবাই অবশ্যই চেষ্টা করবেন ১০০% স্কলার্শিপ নিয়ে পড়ার জন্য তাহলে আপনি চায়নার লেখাপড়া জীবনটা খুব বেশি উপভোগ করতে পারবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

Related Post: চীনে কাজের সুযোগ, চীনে পড়ার অসুবিধা, চীনে মাস্টার্স, চায়না স্কলারশিপ, চীনে মেডিকেলে পড়ার যোগ্যতা, চীনে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং, চীনে স্কলারশিপ পাওয়ার উপায়, চীনে ডিপ্লোমা স্কলারশিপ,Study in china from bangladesh with scholarship, Study in china from bangladesh requirements, Study in china from bangladesh fees, China scholarship for bangladeshi students 2024, Diploma in china from bangladesh, China student visa fee for bangladeshi, China student visa requirements for bangladeshi, Study in china after ssc,

Leave a Comment